Help line: 01790-181018

FSF012. বহুমুখী সূর্যমুখী ফুল(20)/Bohumukhi Sunflower

সূর্যমুখী আসলে একক কোন ফুল নয় ! বড় বড় বৃত্তাকার সূর্যমুখী ফুলের ভিতরগত তথ্য এই যে-ইহা Capitulum নামক এক ধরণের পুষ্পবিন্যাস যা হাজার হাজার ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র পুষ্পিকার সমন্বয়ে গঠিত এবং পুরো গুচ্ছ মঞ্জুরি পত্র দ্বারা পরিবেষ্টিত । সবচেয়ে কনিষ্ঠ পুষ্পিকাটি কেন্দ্রে এবং সবচেয়ে পুরানোটি ( রে ফ্লোরেট ) পরিধি-প্রান্ত সীমানায় অবস্থিত । এই বহুমুখী জাতটিতে পুষ্পবিন্যাসগুলোই চতুর্দিকে বিন্যাস্ত; সূর্য যে দিকেই থাকুক, ফুলের মুখ সূর্যের দিকে, আপনি যে দিকেই থাকুন, ফুল থাকবে আপনার দিকে । সূর্যমুখী ফুলে রয়েছে আশ্চর্যজনক এক প্রাকৃতিক গানিতিক বিন্যাস । কোন গনিতবিদ বা বিএসসি স্যার-সূর্যমুখীকে প্রাইভেট পড়িয়েছিল ? (ব্যাখ্যা বিস্তারিত বর্ণনায় দেখুন) ।
SKU: FSF012
€86.00
Ship to
*
*
Shipping Method
Name
Estimated Delivery
Price
No shipping options




সূর্যমুখী ফুলের আশ্চর্যজনক প্রাকৃতিক গানিতিক বিন্যাস:

প্রকৃতির ভাঁজে লুকিয়ে রয়েছে কত আশ্চর্যজনক গানিতিক বিশ্ময়-বিশেষ করে এই সূর্যমুখীতে ! বৃত্তাকার বৃহৎ ফুলের গুচ্ছকেন্দ্রের ফ্লোরেট বা পুষ্পিকাগুলো পরস্পর সোনালী কোণ অনুপাতে একটি সর্পিল প্যাটার্নে সজ্জিত থাকে যাকে ফিবোনাক্কি সংখ্যা দ্বারা ব্যাখ্যা করা যায় ।

সোনালী অনুপাত ও কোণ:

একটি সরল রেখাকে এরুপ দু’টি অংশে ভাগ করতে হবে যেন বড় অংশকে ছোট অংশ দ্বারা ভাগ করলে যে অনুপাত/ফল পাওয়াযায়; পুরো সরল রেখাকে বড় অংশ দ্বারা ভাগ করলেও একই বা কাছাকাছি অনুপাত/ফল পাওয়া যায় ! এই বিস্ময়কর ভাগফল বা অনুপাতটিই হচ্ছে সোনালী অনুপাত (Golden ratio) । ইহাকে স্বর্গীয়/প্রাকৃতিক অনুপাতও বলা হয় যার মান 1.618 আর এই অনুপাতেই সূর্যমুখীর পাপড়ির আয়তন বৃদ্ধিপ্রাপ্ত হয় ।

অর্থাৎ a/b=(a+b)/a [a>b>0]; a+b=100 হলে, সেক্ষেত্রে a=62 এবং b=38 অতএব 62/38=1.6 আবার (62+38)/62=1.6 একইভাবে কোন বৃত্তচাপকে সোনালী অনুপাতে ভাগ করলে যে কোণ পাওয়াযায়-তা হলো সোনালী কোণ যার মান 137.5°

ফিবোনাক্কি সংখ্যা:

ফিবোনাক্কি (ইতালিয়ান গণিতবিদ)সিরিজে এমন কতগুলো সংখ্যা দেখানো হয় যার প্রতিটি সংখ্যা তার আগের দুইটি সংখ্যার যোগফলের সমান । সিরিজভুক্ত সংখ্যাগুলোর প্রত্যেকটিকে তার আগের সংখ্যা দ্বারা ভাগ করলে ভাগফল ১.৬১৮ বা কাছাকাছি হবে এবং ১৩ তম সংখ্যার পরে (৬১০ থেকে) সবগুলোর ভাগফল হুবহু ১.৬১৮ হবে । এবার ফিবোনাক্কি সিরিজটি লক্ষ্য করুন- ০, ১,  ১,  ২,  ৩,  ৫,  ৮,  ১৩,  ২১,  ৩৪,  ৫৫,  ৮৯,  ১৪৪,  ২৩৩, ৩৭৭,  ৬১০,  ৯৮৭,  ১৫৯৭ ইত্যাদি [১+১=২, ১+২=৩, ২+৩=৫, ৩+৫=৮, ৫+৮=১৩, ৮+১৩=২১, ১৩+২১=৩৪, ২১+৩৪=৫৫ ইত্যাদি] ফুলকপি, শামুকের খোলস, মৌমাছির চাক, উড়ন্ত পাখির ঝাক, ঘূর্ণিঝড় এমনকি মানুষের মাথা থেকে নাভি এবং নাভি থেকে পা পর্যন্ত যে মানটি পাওয়া যাবে তা হল ১.৬১৮ অর্থাৎ সোনালী অনুপাত ।

সালোকসংশ্লেষণের জন্য সর্বাধিক আলো পেতে পাতা যেমন সূর্যের দিকে ঘুর্ণায়মান তেমনি সূর্যমুখী ফুল একটি প্রাকৃতিক সহজাত সার্কাডিয়ান ছন্দ (মানুষের ২৪ ঘন্টা জৈবিক দেহঘড়ির ন্যায়) অনুসরণ করে ।  Phototropism বা আলোকদিকমুখিতা শব্দটি আলোর উৎসের দিকে একটি উদ্ভিদের বৃদ্ধিকে বর্ণনা করে আর Heliotropism বা সূর্যাবৃত্তি হলো এমন একটি প্রক্রিয়া যেখানে একটি উদ্ভিদ বিশেষভাবে আকাশ জুড়ে সূর্যের গতিবিধি অনুসরণ করে । যার প্রকৃষ্ট উদাহরন হলো এই সূর্যমুখী ফুল (বয়স্ক নয় বরং তরুন)। পরিপক্ক ফুল পূর্বমুখী স্থির থাকে আর নড়ে না ।

মাটিস্থ ক্যারোটিনয়েডের কারনে সূর্যমুখী ফুল হলুদ হয় । জলপাই তেলের চেয়ে সস্তা  সূর্যমুখীর তেল ভিটামিন এ-ডি-ই সমৃদ্ধ । খাট খাট গাছে লম্বা লম্বা ব্যাসের বহুমুখী বৃত্তাকার ফুল-সূর্যমুখীর এমন জাত পাওয়াই দুষ্কর । খুঁটি বিহীন বাড়তে থাকে একাধারে ফুঁটতে থাকে । সাধারন গার্হস্থ্য সূর্যমুখী প্রায়শই একটি শাখাবিহীন কান্ডের ওপর যেখানে শুধুমাত্র একটি একক বড় পুষ্পবিন্যাস ধারণ করে-সে তুলনায় বহুমুখী সূর্যমুখী সত্যিই অসাধারন ।

Write Your Own Review

Only registered users can write reviews