Help line: 01790-181018

FSF005. ক্বেবলামুখী সূর্যমুখী ফুল (30)/Qiblamukhi Sunflower

ভৌগোলিক অবস্থানগত ভাবে সৌদি আরব তথা মক্কা বা ক্বাবা শরীফ বাংলাদেশ থেকে বলা চলে সোজা পশ্চিমে অবস্থিত । তাই পশ্চিম দিক (ক্বেবলামূখী) হয়ে এদেশের মানুষ নামাজ আদায় করে । নামাজ হলো ঈমানওয়ালার চিত্তবিনোদন । সূর্যমুখী হলো চিত্তাকর্ষক প্রকৃতির একটি ছোট্ট নমুনা । গাছপালা যে একেবারে স্থির নয়; তারাও যে ডানে-বামে তাকায়; একটু আধটু নড়াচড়া করে-এই সূর্যমুখী তার প্রমান । তবে অন্যান্যদের মতো সূর্যমুখী কেবলই ফুল এর কোন আধ্যাত্মিক ক্ষমতা নেই । তরুন বা প্রায় ফুটন্ত সূর্যমুখী ফুলগুলো ভোরবেলা বাদে সারাদিন পশ্চিম দিকে হালকা হেলে ক্বেবলামুখী থাকার চেষ্টা করে আর এ জন্যই স্থানীয় ভাষায় দেশীয় অবস্থান হেতু সূর্যমুখীকে ক্বেবলামুখী ফুল বলা হয় (ব্যাখ্যা বিস্তারিত বর্ণনায় দেখুন)।
SKU: FSF005
€43.00
Ship to
*
*
Shipping Method
Name
Estimated Delivery
Price
No shipping options




সূর্যমুখী ফুলকে কেন সূর্যমুখী বলা হয়?

সূর্যমুখী ফুলের চেহারা স্পষ্টত একটি প্রদীপ্ত সূর্যের চেহারার অনুরুপ । সকল সূর্যমুখী ফুল ভোর বেলা পূর্বমূখী থেকে সূর্যকে অভ্যর্থনা জানায়; পরে সূর্য যখন পূর্ব থেকে পশ্চিমে যায়, সূর্যমুখী কান্ড (অক্সিন-হরমোনের কারনে) পশ্চিমের তুলনায় পূর্ব পাশে বেশ দ্রুত বৃদ্ধি পায় । উভয় দিকে এই অসম বৃদ্ধির ফলে অপরিপক্ক বা অল্প বয়স্ক ফুল সূর্যের দিকে বেঁকে যায় আর অস্ত না যাওয়া পর্যন্ত আকাশ জুড়ে আকর্ষণীয়ভাবে সারাদিন সূর্যকে অনুসরণ করে । রাতে আবার পূর্ব দিকে মুখ করে পরদিনের সূর্যের প্রত্যাবর্তনের প্রত্যাশায় । কাজেই সূর্যের সাথে ফুল-কুঁড়ির এরুপ মুখোমুখি অবস্থানের কারনেই নাম-সূর্যমুখী ফুল ।

সূর্যমুখী ফুলের বৈজ্ঞানিক নাম হলো-Helianthus annuus; গ্রীক শব্দ Heli মানে সূর্য, Anthus মানে ফুল । সূর্যমুখী ফুল শিশুদের প্রিয় ফুল । অঙ্কিত সূর্যে "রশ্মি" নামক পাপড়ি পরিয়ে নীচ থেকে একটু সোজা-মোটা সুতা টানালেই হয়ে গেলো-সূর্যমুখী ফুল । সূর্যমুখী তেলে কোলেস্টেরলের মাত্রা অত্যন্ত কম যা কাঁশি-কোষ্ঠকাঠিন্য ও হৃদরোগে খুবই উপকারী । সরাসরি রান্না বা চীনাবাদামের স্থলে সূর্যমুখী বীজ ভাজি আর সালাদে ক’টি ছিটিয়ে দিলে-এক অন্যরকম মজা ।

সুখী ফুল-সূর্যমুখী দেখামাত্র মেজাজী/অভিমানী(মুডি)/মনমরা মূখও মুগ্ধ হয় । রান্না ও বডি ম্যাসেজ ছাড়াও বনস্পতি তেল নামে ইহা ঘিয়ের বিকল্প হিসেবে ব্যবহৃত হয় । আপনার সূর্যমুখী ফুল গাছ যদি টিয়া পাখির নজরে পড়ে সে আর অন্যদিকে মুখ না ঘুরিয়ে সাক্ষাৎ করেই যাবে । বয়স হয়েছে বিধায় জাতটি দেশীয় আবহাওয়া বেশ সুন্দর মানিয়ে নিয়েছে । সূর্যমুখী জন্মাতে ৩-৪ ফুট কাঠির ঠেকনা ও পূর্ণ সূর্যের প্রয়োজন । বীজ থেকে খুব সহজেই জন্মে । গাছ একটি ফুল একাধিক ।

Write Your Own Review

Only registered users can write reviews